শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo কাহারোলে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে দিবস পালিত Logo শাজাহানপুরে টানা ৪র্থ বারের মতো শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক ( কারিগরী ) নির্বাচিত হলেন Logo টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ Logo শেরপুর উন্নয়ন পরিষদের বৃক্ষচারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন  Logo শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে গরুচোর চাক্রের ৫সদস্য গ্রেপ্তার Logo মিন্টুর লাশ দুবাই থেকে দেশে আনতে পরিবারের আকুতিঃ Logo দলিল লেখক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন Logo শার্শাকে ডিজিটাল হিসেবে গড়তে চাই উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহরাব হোসেনের  Logo অভয়নগরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের অভিযানে ৪টি প্রতিষ্ঠানে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা Logo বিষয় ঃ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক বিশ্ব কবি “রবি”র জন্মদিন আজ!
বিজ্ঞাপন
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ।  যোগাযোগঃ 01977306839

বৃষ্টি ও উজানের ঢলে মাঠ ও শ্রেণিকক্ষে পানি ঢুকে পড়ায় গাইবান্ধার ১১১টি স্কুলের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

Reporter Name / ১০৭৯ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২, ২:৪১ পূর্বাহ্ণ

 মো:সাব্বির হোসেন রনি। গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: প্রতিবেদন: গাইবান্ধার চার উপজেলার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের ১১১টি প্রাথমিক স্কুলের পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বৃষ্টি ও উজানের ঢলে মাঠ ও শ্রেণিকক্ষে পানি প্রবেশ করায় এসব বিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ জুন) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. হোসেন আলী। তিনি বলেন, কয়েকদিন ধরেই জেলার চার উপজেলায় বন্যা শুরু হয়েছে। ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাটসহ অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। বন্যাপ্লাবিত এলাকার অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চারদিকেই এখন শুধু পানি। এরমধ্যে কিছু স্কুলের মাঠ ও শ্রেণিকক্ষে পানি ঢুকে পড়েছে। এ অবস্থায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কেউই স্কুলে আসতে পারছেন না। এ কারণেই দুর্গত এলাকার ১১১টি স্কুলের পাঠদান বন্ধ রাখা হয়েছে। তিনি আরও জানান, বন্ধ ঘোষণা করা স্কুলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক স্কুল ফুলছড়ি উপজেলায় (৬২টি)। এছাড়া সদর উপজেলায় ১৬টি, সাঘাটায় ৮টি ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ২৫টি স্কুল বন্ধ রয়েছে। এরমধ্যে যে স্কুলগুলোতে এখনও পানি ঢোকেনি সেগুলো আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি। বন্যার পানি কমার সাথে সাথে এসব স্কুলে পাঠদান শুরু করা হবে। শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। প্রসঙ্গত, কয়েকদিন ধরেই নদ-নদীর পানি বেড়ে প্লাবিত হয়েছে গাইবান্ধার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা। সরকারী হিসাব অনুযায়ী গাইবান্ধা সদর, সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার ২০টি ইউনিয়নে পানিবন্দি অন্তত ৪০ হাজার মানুষ। তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ এলাকার পাট, বাদাম ও শাক-সবজিসহ বিভিন্ন ফসল। কাঁচা রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসীর পারাপারে একমাত্র ভরসা এখন নৌকা। উজানের ঢল অব্যাহত থাকায় মঙ্গলবার (২১ জুন) সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘাঘট নদীর পানি শহর পয়েন্টে বিপদসীমার ৪৩ সেন্টিমিটার ও যমুনার পানি ফুলছড়ি পয়েন্টে বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে তিস্তা নদীতে ১৬ সেন্টিমিটার ও করতোয়া নদীর পানি বিপদসীমার ১.১২ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডাটাএন্ট্রি অপারেটর মো. আজাদ মিয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST