শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo কাহারোলে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে দিবস পালিত Logo শাজাহানপুরে টানা ৪র্থ বারের মতো শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক ( কারিগরী ) নির্বাচিত হলেন Logo টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ Logo শেরপুর উন্নয়ন পরিষদের বৃক্ষচারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন  Logo শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে গরুচোর চাক্রের ৫সদস্য গ্রেপ্তার Logo মিন্টুর লাশ দুবাই থেকে দেশে আনতে পরিবারের আকুতিঃ Logo দলিল লেখক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন Logo শার্শাকে ডিজিটাল হিসেবে গড়তে চাই উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহরাব হোসেনের  Logo অভয়নগরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের অভিযানে ৪টি প্রতিষ্ঠানে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা Logo বিষয় ঃ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক বিশ্ব কবি “রবি”র জন্মদিন আজ!
বিজ্ঞাপন
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ।  যোগাযোগঃ 01977306839

জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার ১৫ দফা দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

Reporter Name / ৪৪০ Time View
Update : শুক্রবার, ১৪ জুলাই, ২০২৩, ১২:৪৫ অপরাহ্ণ

 নিজস্ব প্রতিবেদক : “জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর” প্রতিষ্ঠাসহ বাঙলা সাহিত্যের উন্নয়ন, অগ্রগতি ও লেখকদের কল্যাণে ১৫ দফা দাবী বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংগঠনের সিনিয়র সমন্বয়ক রওশন আরা রুশোর সভাপতিত্বে উন্মুক্ত সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,, সংগঠনের সিনিয়র সমন্বয়ক রওশন আরা রুশোর সভাপতি ও প্রধান সমন্বয়ক কাজী ছাব্বীর,, মুখপাত্র নীলা মল্লিকের সঞ্চালনায়, সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসাইন, মাহমুদুল হাসান নিজামী, নাসিমা বানু করিম, ইভা আলমাস, প্রফেসর ডক্টর সন্দীপক মল্লিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ ইকবাল হাসান স্বপন, রবিউল মাশরাফি, নজরুল বাঙালি। সমন্বয়কদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেসমিন দীপা, আব্দুল গনি ভূইয়া, নুরুল শিপার খাঁন, সাইফ সাদী, শরিফুল ইসলাম মুন্সী, আসমান আলী, শামীমা রুজী, বেলাল আহমদ, অসীম ভট্রচায্য, ইলোরা সোমা, সাজেদা ডুলু, নাসিমা ইসলাম,। সদস্যদের মধ্যে, মিলি হক, এডভোকেট সরদার আব্বাস উদ্দিন, আরিফুজাম্মান জুলহাসসহ কয়েকশত কবি-সাহিত্যিকগণ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রধান সমন্বয়ক কাজী ছাব্বীর” জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর বাস্তবায়ন পরিষদ কতৃর্ক উত্থাপিত ১৫ দফা দাবীসমূহ,,, ১) বিদ্যমান সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়—এর জনবল দিয়েই একটি পৃথক “জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর” প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। “সাহিত্যকে সমাজ বদলের হাতিয়ার” হিসাবে প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে, সাহিত্য সেবায় সম্পৃক্তদের রাষ্ট্রীয়ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করা। ২) সাহিত্য সেবায় সম্পৃক্ত সৃজনশীল ব্যক্তিদের তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে সাহিত্যচর্চার পরিবেশ বান্ধব একটি “সাহিত্য পল্লী” প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া সৃজনশীল সাহিত্যসেবীদের সাম্মানিক প্রদান ও সাহিত্য কর্ম সংরক্ষণের পদক্ষেপ গ্রহণ করা। ৩) শুদ্ধ উচ্চারণ এবং বাংলা বানান ও বর্ণমালা সহজীকরণে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহসহ সকল ভাষাবিজ্ঞানীদের সুপারিশমালা বাস্তবায়ন করা এবং রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আবৃত্তি প্রশিক্ষণ কর্মশালা ও সাহিত্য গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা এবং মানসিক পরিশুদ্ধির জন্য প্রতিটি সরকারী—বেসরকারী অফিসসমূহে ছোট পরিসরে হলেও পাঠাগারের ব্যবস্থা করা। ৪) দেশের প্রতিটি শহরে বহুতল ভবন, মার্কেট নির্মাণের নকশা অনুমোদনকালে বাধ্যতামূলকভাবে গণপাঠাগার / গণগ্রন্থাগারের জন্য নির্দিষ্ট সংখ্যক ঘরের ব্যবস্থা করা। ৫) উদীয়মান লেখকদের সাহিত্য চর্চার সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে নিয়মিত ‘লিট্ল ম্যাগাজিন’ প্রকাশের জন্য আর্থিক অনুদান প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করা। ৬) প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সাহিত্যকর্মে ঢাকায় আসা লেখকদের জন্য সাশ্রয়ীব্যয়ে, নিরাপদ রাত্রিযাপনে কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় একটি “সাহিত্য ভবন” নির্মাণ করা। ৭) দলীয় প্রভাবমুক্ত হয়ে কবিতা, ছড়া, গল্প, উপন্যাসসহ যাবতীয় বিষয় ভিত্তিক প্রকাশিত বইসমূহ যাচাই—বাছাই পূর্বক লেখকদেরকে সরকারিভাবে বাৎসরিক এককালীন অনুদানসহ সনদ প্রদান করার ‌ পরিকল্পনা গ্রহণ করা। ৮) তালিকাভুক্ত লেখকদের সরকারি, বেসরকারি সকল হাসপাতালে বিনামূল্যে উন্নত চিকিৎসা পরিসেবা নিশ্চিত করা এবং তাদের সন্তানদেরকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে অবৈতনিক শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ প্রদান করা। ৯) সৃজনশীল বই প্রকাশে লেখকদের সহজ কিস্তিতে সুদবিহীন ঋণ প্রদান এবং জীবনাবসানের পর তালিকাভুক্ত লেখকদের পরিবারকে এককালীন আর্থিক অনুদান প্রদানের ব্যবস্থা করা। ১০) সৃজনশীল প্রকাশনার পাশাপাশি নিজস্ব বই প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে লেখকদের নামে একুশে গ্রন্থমেলায় স্টল বরাদ্দসহ, প্রতিটি জেলা, উপজেলায় বাৎসরিক বই মেলার আয়োজন করা। ১১) সাহিত্যসেবামূলক কার্যক্রম এগিয়ে নেয়ার স্বার্থে সাহিত্য বিষয়ক সভা, সমাবেশ, সেমিনারে অংশ গ্রহণে জেলা, উপজেলায় যাতায়াতে তালিকাভুক্ত লেখকদের জন্য সরকারিভাবে পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। ১২) সাহিত্য সংগঠন সমূহের রেজিষ্ট্রেশন বাধ্যতামূলক করার পাশাপাশি সাহিত্য সংগঠন—এর বাৎসরিক অনুষ্ঠানগুলিতে সরকারিভাবে অনুদান প্রদান করা। ১৩) মাসিক কবিতা, ছড়া, গল্প, প্রবন্ধ, ও উপন্যাস প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শ্রেষ্ঠ লেখক কবি, গীতিকার, সাহিত্যিক, নাট্যকার, ছড়াকার, গল্পকার প্রাবন্ধিক নির্বাচন করে সনদ প্রদানসহ আর্থিক অনুদানে পুরস্কৃত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ১৪) বাংলাদেশের বিভিন্ন ভাষাভাষীদের নিজস্ব ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি লালনে দেশের আঞ্চলিক সাহিত্য এবং সংস্কৃতি বিকাশের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করা। ১৫) সর্বোপরি উপরোল্লিখিত ন্যায্য দাবী দাওয়া পূরণের লক্ষ্যে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের নামের সাথে ‘সাহিত্য’কে সংযোজন করে “সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়” হিসেবে নামকরণের মাধ্যমে সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর অধীনে পৃথক “জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর” প্রতিষ্ঠা করার জন্য সরকারের কাছে জোরালো ভাবে আহবান জানান জাতীয় সাহিত্য অধিদপ্তর বাস্তবায়ন পরিষদ ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST