শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo কারাগারে বসে পরিকল্পনা;জামিনে বেড়িয়ে এক পরিবারের সদস্যদের অজ্ঞান করে ৪০ লক্ষ টাকা চুরি,আটক ৪ Logo ঝিনাইগাতী ক্লাবের উদ্যোগে ঘর পেলো অসহায় সাফিয়া Logo সরাসরি দুর্নীতিবাজকে বলতে শিখুন দুর্নীতিবাজ ঃ মো.জহুরুল হক Logo আদর্শ জাতি গঠনে সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। Logo নরসিংদীতে অবৈধ অস্ত্র ও গুলিসহ যুবক গ্রেপ্তার  Logo শেরপুরে পরিবেশ দিবস উপলক্ষে র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত Logo শেরপুরের নকলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১ Logo নালিতাবাড়ীতে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার Logo জেলা প্রেসক্লাবের দীলু সহ সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় কফি হাইজের শেষ বেলা শুভেচ্ছা। Logo আজ শেরপুরের ভাষা সৈনিক আব্দুর রশীদ এর দশম মৃত্যুবার্ষিকী
বিজ্ঞাপন
আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন ।  যোগাযোগঃ 01977306839

যুক্তরাষ্ট্রের ৬১ কর্মকর্তাকে কালো তালিকাভুক্ত করলো ইরান

Reporter Name / ১১৫৩ Time View
Update : রবিবার, ৩১ জুলাই, ২০২২, ২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

হাকিকুল ইসলাম খোকন ,যুক্তরাষ্ট্র সিনিয়র প্রতিনিধিঃমোজাহিদিন-ই-খালেক (এমইকে) সংগঠনকে পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের ৬১ কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইরানের ক্ষমতাসীন সরকার।গতকাল শনিবার (১৭ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ও সাবেক ৬১ কর্মকর্তার একটি তালিকা প্রকাশ করে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।ইরান সরকার মোজাহিদিন-ই-খালেক (এমইকে) সংগঠনকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে। ওই সংগঠন প্রকাশ্যে ইরানের বর্তমান সরকারকে উৎখাতের ঘোষণা দিয়েছে।এক বিবৃতিতে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, কালো তালিকাভুক্ত ব্যক্তিরা এমইকে সংগঠনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিল। এছাড়া, তাদেরকে রাজনৈতিক বা অপপ্রচারমূলক কর্মকাণ্ডে তারা সহায়তা করেছেন।যদিও ইরান সরকারের এই নিষেধাজ্ঞাকে ‘প্রতীকি’ বলে ধরা হচ্ছে। কারণ ইরানে নিষেধাজ্ঞার আওতায় ৬১ যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের ইরানে কোন সম্পদ নেই এবং তারা কখনো ইরান ভ্রমণ করেননি। ইরান সরকারের মতে, গত কয়েক দশকে শিশু ও নারীসহ ১৭ হাজারের বেশি ইরানের নাগরিককে হত্যা করেছে এমইকে। ১৯৭৯ সালে ইরানের ইসলামিক বিপ্লবের সমর্থক ছিল এমইকে। কিন্তু পরে তারা দেশটির ক্ষমতাসীন সরকারের প্রধান বিরোধী সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। এমইকে বহু মানুষকে হত্যা এবং বোমা হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এছাড়া, ১৯৮০ সালে ইরানে আট বছর ধরে চলা অভিযানে সাদ্দাম হোসাইনকে সাহায্য করে। এমনকি সাদ্দামের পক্ষেও যুদ্ধ করে সংগঠনটি। যদিও এমইকে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘সন্ত্রাসী’ সংগঠনের তালিকায় ছিল। কিন্তু এক দশক আগে সংগঠনটিকে কালো তালিকাভুক্তি থেকে বাদ দেওয়া হয়। তারপর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বিশেষত রিপাবলিকানরা প্রকাশ্যে এমইকে সংগঠনের বিভিন্ন সমাবেশে অংশগ্রহণ করে। এমনকি এমইকে দলের প্রতি নিজেদের সমর্থনও প্রকাশ করেন। ওই সংগঠনটি বহু ইউরোপীয় দেশ যেমন ফ্রান্, সুইডেন, আলবেনিয়াতে ইরানের ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সমাবেশ করেছে। ইরান সরকারে অভিযোগ, এমইকে সংগঠনের সমাবেশের অনুমতি দিয়ে ‘সন্ত্রাসী’ কর্মকাণ্ডের পৃষ্ঠপোষকতা করছে ওই দেশগুলো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST